কুমিল্লায় ঢাকা-চট্টগ্রাম মহাসড়কে তীব্র যানজট

Posted on by

কুমিল্লা টিভি নিউজঃ ঢাকা-চট্টগ্রাম মহাসড়কের প্রায় নয় কিলোমিটার এলাকায় তীব্র যানজট চলছে। কুমিল্লার দাউদকান্দি উপজেলার গৌরীপুর এলাকা থেকে মেঘনা-গোমতী সেতুর পশ্চিম অংশ পর্যন্ত লেগে আছে এই যানজট।ধারণক্ষমতার চেয়ে বেশি পণ্য নিয়ে যানবাহন মেঘনা-গোমতী ও মেঘনা সেতু দিয়ে ধীরগতিতে চলায় এ যানজট দেখা দিয়েছে।বুধবার রাত ১০টা থেকে এ যানজটের সৃষ্টি।ঘণ্টার পর ঘণ্টা যানজটে আটকে থেকে যানবাহনের চালক ও যাত্রীরা দুর্ভোগ পোহাচ্ছেন।বৃহস্পতিবার সকাল নয়টার দিকে কুমিল্লার চান্দিনা উপজেলার গল্লাইনবাবপুর গ্রামের দোকানদার অর্নিবাণ পরিবহনের বাসের যাত্রী জাহাঙ্গীর আলম বলেন,এক মাস বয়সী মেয়ের নিউমোনিয়া জ্বরের চিকিৎসার জন্য স্ত্রীসহ আজ ভোরে ঢাকার উদ্দেশে রওনা দিয়েছি।

তিনি বলেন,কুমিল্লার দাউদকান্দি উপজেলার গৌরীপুরে এসে যানজটে আটকা পড়ে শহীদনগর পর্যন্ত চার কিলোমিটার পথ অতিক্রম করতে দুই ঘণ্টা সময় লেগেছে।অসুস্থ মেয়েকে নিয়ে কখন ঢাকায় পৌঁছতে পারব জানা নেই।গাড়িতে বাচ্চাটার খুব কষ্ট হচ্ছে।বাসের চালক লিটন মিয়া বলেন, ‘ভোররাত সাড়ে চারটায় বাস ছেড়েছে। প্রথম টিপের গাড়িরই এ অবস্থা।পরের গাড়ির কী অবস্থা হবে কে জানে? গতকালও একই সমস্যায় পড়েছিলাম।ঢাকাগামী জৈনপুরী পরিবহনের বাসের যাত্রী নুসরাত জাহান বলেন,দুই বছরের সন্তান নুহানকে নিয়ে ঢাকার উদ্দেশে রওনা দিয়ে তীব্র যানজটে আটকে পড়েছি। কখন ঢাকায় পৌঁছতে পারব,এ নিয়ে ভাবছি।

কথা হয় দাউদকান্দির ড. খন্দকার মোশাররফ হোসেন কলেজের শিক্ষার্থী আবু সাইদ,তজবীর হাসান, মাহববুর রহমান, প্রমা রানী শীল, রুনা আক্তার ,আঁখি আক্তার,নাদিয়া আফরীন,খাদিজা আক্তার, রত্না আক্তার ও মরিয়ম আক্তারের সঙ্গে। তাঁরা জানান,তীব্র যানজটে আটকা থেকে গতকাল দুই ঘণ্টা দেরিতে কলেজে পৌঁছেছেন। আজও একই অবস্থা।সকাল সাড়ে নয়টায় দাউদকান্দির শহীদনগরে কথা হয় চট্টগ্রাম থেকে ঢাকাগামী ট্রাকচালক শামীম মিয়া, মো. মিঠুন আলী, কাভার্ডভ্যানের চালক সুমন মিয়া, কোম্পানীগঞ্জ থেকে ঢাকাগামী তিশা পরিবহনের বাসের চালক কামাল হোসেন, কুমিল্লা থেকে ঢাকাগামী বিআরটিসি বাসের চালক মো. শাহ আলম, ফেনী থেকে ঢাকাগামী স্টার লাইন বাসের চালক সিরাজুল ইসলাম ও বাসযাত্রী রোদোয়ান মজুমদারের সঙ্গে। তাঁরা জানান, গৌরীপুর থেকে শহীদনগর পর্যন্ত চার কিলোমিটার অতিক্রম করতে দুই ঘণ্টার বেশি সময় লেগেছে।

নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক এক পুলিশ কর্মকর্তা বলেন, ঈদের পর থেকে ঢাকা-চট্টগ্রাম মহাসড়কে পুনরায় ফিটনেসবিহীন ট্রাক ও কাভার্ডভ্যানগুলো চলাচল শুরু হয়েছে। তাদের বিরুদ্ধে প্রশাসনের নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট পর্যায়ের কেউ ব্যবস্থা নিচ্ছে না। বিআরটিএর কিছু অসাধু কর্মকর্তা ফিটনেসবিহীন ট্রাক ও কাভার্ডভ্যানগুলো প্রথমে চার অক্ষরের নম্বরে, মাঝে ০৫ নম্বরে এবং বর্তমানে ১১ সিরিয়ালের নম্বরে চলাচলের সুযোগ দেওয়ার কারণে এ যানজটের সৃষ্টি। ঈদকে সামনে রেখে যানজট স্থায়ী আকার ধারণ করলে যাত্রীদের ভোগান্তি বৃদ্ধি পাবে।

সরেজমিনে দেখা যায়, ফিটনেসবিহীন ট্রাক ও কাভার্ডভ্যান মেঘনা-গোমতী ও মেঘনা সেতুতে কম গতিতে চলাচল করছে। এতে পেছনের গাড়ির গতি কমে যাচ্ছে, সৃষ্টি হচ্ছে যানজট।

দাউদকান্দি হাইওয়ে থানা ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) আবুল কালাম আজাদ বলেন, ধারণক্ষমতার চেয়ে বেশি ওজনের অতিরিক্ত যানবাহন মেঘনা-গোমতী ও মেঘনা সেতুর ওপর দিয়ে ধীরগতিতে চলাচলের কারণে এ যানজটের সৃষ্টি।যানবাহন চলাচল স্বাভাবিক করতে হাইওয়ে পুলিশ প্রাণপণ চেষ্টা চালাচ্ছে।

Leave a Reply

More News from কুমিল্লা

More News

Developed by: TechLoge

x