কুমিল্লায় প্রেমের কারনেই অন্তু খুন? সন্দেহ বান্ধবীকে

Posted on by

কুমিল্লা টিভি নিউজঃ কুমিল্লা নগরীর অজিত গুহ মহাবিদ্যালয়ের উচ্চ মাধ্যমিক বিজ্ঞান বিভাগের ২য় বর্ষের ছাত্র শিহাব উদ্দিন অন্তুকে ছুরিকাঘাত করে খুন করার ঘটনায় বুধবার বিকেলে কোতোয়ালি মডেল থানায় মামলা দায়ের করা হয়েছে।পুলিশ এ মামলার আসামি রাকিব ওরফে লিমন নামে একজনকে গ্রেফতার করেছে।পূর্ব শত্রুতার জের ধরে এ হত্যাকাণ্ড ঘটেছে বলে পুলিশ জানিয়েছে।তবে স্থানীয় এবং অন্তুর পরিবারের সন্দেহের তীর ফারিয়া নামের এক কলেজছাত্রী ও তার প্রেমিকের দিকে। ধারণা করা হচ্ছে এ হত্যাকাণ্ডের নেপথ্যে প্রেম ঘটিত বিষয় রয়েছে।হত্যাকাণ্ডের আগে মোবাইলে কলেজছাত্র অন্তুকে ধর্মসাগর পাড়ে ডেকে আনা হয়েছিল সেই ফারিয়াকে গান শুনাতে।

সেখানে এসেই খুন হন অন্তু।মঙ্গলবার রাতে নগরীর ধর্মসাগর পাড় এলাকায় এ ঘটনা ঘটে।নিহত কলেজছাত্র অন্তু জেলার বুড়িচং উপজেলার ইছাপুরা গ্রামের হুমায়ুন কবির ভূঁইয়ার ছেলে।এদিকে কলেজছাত্র অন্তু হত্যার ঘটনায় তার স্বজন ও সহপাঠীরা অবিলম্বে অপর ঘাতকদের গ্রেফতারের দাবি জানিয়েছেন।পুলিশ ও স্থানীয় সূত্রে জানা যায়,অন্তুর বাবা-মা পারিবারিকভাবে নগরীর রেইসকোর্স এলাকায় ভাড়া বাসায় থাকেন।অন্তু প্রতিদিনের মতো মঙ্গলবার রাত ৮টার দিকে কুমিল্লা নগরীর ধর্মসাগর পাড়স্থ নগর উদ্যানে গান গাইতে যান।এ সময় অজ্ঞাত দুর্বৃত্তরা তার পায়ে ও বুকে ছুরিকাঘাত করে চলে যায়।গুরুতর আহত অবস্থায় পথচারীরা তাকে উদ্ধার করে কুমিল্লা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে নিয়ে গেলে চিকিৎসকরা তাকে মৃত ঘোষণা করেন।

অন্তুর মা শিরিন আক্তার জানান,সন্ধ্যায় মোবাইল ফোনে কল করে অন্তুকে বাসা থেকে ডেকে নিয়ে পরিকল্পিতভাবে খুন করেছে।ঘাতকরা অন্তর পূর্ব পরিচিত বলে তিনি দাবি করেন।তবে প্রেম সংক্রান্ত বিরোধের জেরে এ হত্যাকাণ্ডের ঘটনা ঘটে থাকতে পারে বলে স্থানীয় সূত্রে জানা গেছে।অন্তুর পরিবারের পক্ষ থেতে ফারিয়া নামের এক মেয়ের নাম বলা হয়েছে,তাকে আটক করলে হত্যাকাণ্ডের পুরো রহস্য বেড়িয়ে আসবে বলে নিহতের মা শিরিন আক্তার দাবি করেছেন।

এদিকে হত্যাকাণ্ডের রহস্য উদ্ঘাটনে মাঠে নেমেছে পুলিশ ব্যুরো অব ইনভেস্টিগেশনসহ (পিবিআই) পুলিশের একাধিক টিম।এরই মধ্যে চাঞ্চল্যকর এ হত্যাকাণ্ডে জড়িতদের শনাক্ত করতে কয়েকজনকে আটক করে জিজ্ঞাসাবাদ করেছে পুলিশ।বুধবার সকাল থেকে দুপুর পর্যন্ত পিবিআইর তদন্ত টিম হত্যার স্থল কুমিল্লা ধর্মসাগর পাড় পরিদর্শনসহ কুমিল্লা মেডিকেল কলেজ হাসপাতাল প্রাঙ্গণে অন্তুর স্বজনদের সাথে কথা বলেছে।অন্তু হত্যার ঘটনায় মামলা,তদন্তে পিবিআইসহ পুলিশের একাধিক টিমএদিকে,নিহত অন্তুর পিতা হুমায়ূন কবির বুধবার দুপুরে কোতোয়ালী মডেল থানায় একজনের নাম উল্লেখ করে অজ্ঞাত আরো কয়েকজনের নামে একটি অভিযোগ দায়ের করেন।

যথাযথ প্রক্রিয়া শেষে বিকেল পৌনে ৪টায় অভিযোগটি মামলা হিসেবে নথিভুক্ত করা হয় বলে জানান কোতোয়ালী থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) আবু সালাম মিয়া।তবে তদন্তের স্বার্থে অভিযুক্তের নাম বলতে রাজি হননি তিনি।আর থানার তদন্ত কর্মকর্তা সালাউদ্দিন জানিয়েছেন, হত্যার রহস্য উন্মোচন ও জড়িতদের গ্রেফতারে পুলিশের একাধিক টিম মাঠে নেমেছে।অন্তু হত্যার ঘটনায় মামলা,তদন্তে পিবিআইসহ পুলিশের একাধিক টিমএর আগে মঙ্গলবার দিবাগত রাত ৮টায় মোবাইল ফোনে বাসা থেকে ডেকে নিয়ে নগরীর ধর্মসাগরপাড় এলাকায় ছুরিকাঘাতে হত্যা করা হয় কলেজছাত্র সিহাব উদ্দিন অন্তুকে।

সে কুমিল্লা নগরীর রেইসকোর্স এলাকার হুমায়ূন কবিরের পুত্র।তার গ্রামের বাড়ি বুড়িচং উপজেলার ইছাপুরায়।সে কুমিল্লা অজিতগুহ কলেজের উচ্চ মাধ্যমিক দ্বিতীয় বর্ষের ছাত্র।তার মা কুমিল্লা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের সিনিয়র স্টাফ নার্স শিরিন আক্তার। অন্তুরা ১ ভাই ১ বোন।তার বড় বোন কুমিল্লা মেডিকেল কলেজের এমবিবিএস ফাইনাল ইয়ারের ছাত্রী।

জানা যায়,কুমিল্লা শহরের স্থানীয় একটি ব্যান্ড দলের ভোকালিস্ট অন্তু ও তার বন্ধু-সহপাঠীরা প্রতিদিন ধর্মসাগর পাড়স্থ ‘অবকাশে’ গান করতো।এরই ধারাবাহিকতায় মঙ্গলবার রাতে তাকে গান শোনার কথা বলে সেখানে মোবাইল ফোনে ডেকে নিয়ে যাওয়া হয়।বাসা থেকে বের হয়ে ধর্মসাগরপাড় যাওয়ার কিছুক্ষণের মধ্যেই দুর্বৃত্তরা তার পায়ে ও বুকে ছুরিকাঘাত করে।অন্তু হত্যার ঘটনায় মামলা,তদন্তে পিবিআইসহ পুলিশের একাধিক টিম আহত অবস্থায় তার দেহ রাস্তায় পড়ে থাকলে পথচারীরা কুমিল্লা মেডিকেল কলেজ (কুমেক) হাসপাতালে নিয়ে যায়।পরে চিকিৎসকরা তাকে মৃত ঘোষণা করেন।

তার মৃত্যুতে আত্মীয় স্বজনের কান্নায় কুমেক হাসপাতালের পরিবেশ ভাড়ি হয়ে উঠে।সন্তান হারিয়ে পাগলপ্রায় অন্তুর মা শিরিন আক্তার বারবার মুর্ছা যাচ্ছেন।পরে ময়না তদন্ত শেষে অন্তুর মরদেহ নিয়ে যাওয়া হয় গ্রামের বাড়ি ইছাপুরায়।বাদ আসর জানাজা শেষে পারিবারিক কবরস্থানে তাকে দাফন করা হবে।এদিকে,কুমিল্লা নগরীর একমাত্র বিনোদন কেন্দ্র নগর উদ্যান সংলগ্ন ধর্মসাগর পাড়ে এ হত্যাকাণ্ডের ঘটনায় নগরজুড়ে চাঞ্চল্যের সৃষ্টি হয়েছে।এর রহস্য উন্মোচনে তৎপর আইনশৃঙ্খলা বাহিনীও।এরই মধ্যে পুলিশের তদন্ত সংস্থা পুলিশ ব্যুরো অব ইনভেস্টিগেশন (পিআইবি) দল ছায়া তদন্ত করতে নেমেছে।ইন্সপেক্টর মাসুদের নেতৃত্বে পিবিআই সদস্যরা পরিদর্শন করেছেন ঘটনাস্থল ধর্মসাগর পাড় ‘অবকাশ’ কেন্দ্র। এছাড়াও তারা কুমেক হাসপাতালে লাশের সুরতহাল পর্যবেক্ষণ করেন ও অন্তুর বাবা-মাসহ স্বজনদের সাথে কথা বলেন।

বিষয়টি নিশ্চিত করে পিবিআইর তদন্ত কর্মকর্তা ইন্সপেক্টর মো.মাসুদ বলেন,তিনটি বিষয়কে সামনে রেখেই আমরা তদন্ত করছি।তার ধারণা- প্রণয়ঘটিত, সিনিয়র-জুনিয়র দ্বন্দ্ব কিংবা অবকাশে আড্ডা দেয়া নিয়ে দ্বন্দ্বের জের ধরে এ হত্যাকাণ্ড সংঘঠিত হতে পারে।বিষয়টির সাথে একমত পোষণ করে কোতোয়ালী মডেল থানার তদন্ত কর্মকর্তা (ওসি তদন্ত) সালাউদ্দিন আহমেদ বলেন,হত্যাকাণ্ডে জড়িতদের চিহ্নিত করতে ও রহস্য উন্মোচনের জন্য পুলিশের একাধিক টিম মাঠে কাজ করছে। এরই মধ্যে কয়েকজনকে থানায় এনে জিজ্ঞাসাবাদও করা হয়েছে।জিজ্ঞাসাবাদের জন্য এখনো একজনকে থানায় আনা হয়েছে।তবে তাদের নাম-পরিচয় বলতে রাজি হননি তিনি।

Leave a Reply

More News from কুমিল্লা

Developed by: TechLoge

x